পৃষ্ঠাসমূহ

বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই, ২০১৩

Poetry




চরিত্র

১.
পশু কাটে যারা তাদের আমরা কসাই বলি
মানুষ কাটে যারা তাদের আমরা মশাই বলতে পারি।
২.
যে কুকুর গু-খায় সে চান্স পেলেই খায়।
যে মানুষ গীবত গায় সে চান্স পেলে হাজী সাহেব।
৩.
সময় যখন যার  গর্জে ওঠে বারবার
মানুষে মানুষ ঠকাচেছ মানুষেরা বর্ববর।
৪.
এখন নারীরাও সব পারে! সব পুরূষের মত করে
নারী-পুরুষ এক এখন বিভেদ শুধু প্রেম পন্যে
লাভ-ক্ষতির আঙ্ক যোগ-বিয়োগের পরিণতি
দাবানল দাহ মমতার খুনী মমতায়।
৫.
সব প্রেম নিয়ে যায় যৌনতায় এক সময় এটাই মুখ্য
শ্যামের হাতে বাশীঁ এফ্রোদিতির মত সুখ্য।
৬.
চালাক চালক বোকাদের দল চতুরতায়
বোকাদের বিশ্ব বিস্ময়ে মধ্যবিত্তদের মতো
ধনির আবার রেশন কার্ড গরিবের মতো, প্রায় বিলুপ্ত
মৌলিক জাত একরকম মধ্যবিত্তই ।


রাষ্ট্রবিগগাণের সংগাটা বদলে টিতে পারি।

এ পার্থিব জলজ উপস্থিতি বেডরুমের প্রতিকোণ
কোনঠাসা হয়ে আছি জিতবার মোহড়ায়
কে জ্বালাবে বাতি,  কলঙ্কলাজ চিৎকার করে
আমাকে একটা হাত দাও
গণহত্যার প্রতিশোধ নিতেপারি,
নিতেপারি এইগণজাগরণের মন্ত্র হতে
আমাকে একটা হাত দাও
পুরোনো তোমাকে জড়িয়ে ধরতে পারি।
সব কটা বিজয়ীর হাত নত করে
আমার বিজয় চিহœ ওদের আঙুলে দিয়ে দিতে পারি।
টিপে ধরতে পারি সব রাজাকারের গলা
দেখবে সেদিন দাড়িয়ে দাড়িয়ে জন্মান্ধ হাতটি বাড়িয়ে।
আমাকে একটা হাত দাও
ভ’্রণ হত্যাকারি কে শাস্তির জন্য,
ধর্মান্ধ মানুষের চোখে রোগ সারিয়ে দিতে পারি।
এ পৃথিবিটার সব বর্ডার, ব্যরিকেড, হরতাল, আমার দেশের বিরুদ্ধের সব চক্রান্ত,
 ভৈরব-কপোতাক্ষের পুরোনো যৌবন, তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধ আশংকা,
এক তুড়িতেই উড়িয়ে দিতে পারি।
সব চিড়িয়াখানা, আথচ একটা আস্ত স্বদেশ, যে
দেশটার চারপাশে কাটাতারের বেড়াদিয়ে আমরা স্বধীন বলতে পারি।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Google+ Badge

send or tell a frind

voice of the protestant


take a look!

Translate

Sayed Taufiq Ullah