পৃষ্ঠাসমূহ

সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০১৩

Verdict of International Crime Tribunal Bangladesh

Vedio link: Gulam Azam verdict 

Say no to them! the war criminals.
.........................................................................................................................

The verdict on Prof Ghulam Azam is due on Monday for his activities in 1971 against our Liberation War. He is the Master Mind at that time to killed, abused, robbery Bangladeshi with the bloody Pakistani.I am become hopeless after hearing the Verdict, only `Ghulam Azam gets 90-year imprisonment`-
Is this enough for his crime which brutally heart rending each and every Bangladeshi people, today. As an Advocate I clearly know about the Capital punishment, I never find a single word in furious of this so called verdict,Which showed sympathy among that man who is harmful for a nations, shame for a nations. I cant understand The Justices consider his age, physical status how & why?Is that lawful? If then every criminal who deserve capital punishment they should deserve to consider as same because they are much innocent than Ghulam Azam, isn`t.

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, রায়ে আমরা ক্ষুদ্ধ, বিস্মিত। আমরা মনে করি, এ রায় পক্ষপাতদুষ্ট ও আবেগতাড়িত।যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াতের এই সাবেক আমিরকে সোমবার ৯০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। ৫ ধরনের ৬১ অপরাধের দায়ে তার এ শাস্তির আদেশ দিয়েছেন চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর, বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি আনোয়ারুল হকের সমন্বয়ে গঠিত ৩ সদস্যের ট্রাইব্যুনাল

I felt something doubtful about the aforesaid Verdict, It sees to me that its intentional Verdict to save that criminal or a political negotiation of ruling party for their political desire. This verdict is not tenable in law. Its bad impression to our Law & Justices` System. A criminal who killed more than 30 millions, who destroy a nations hope, who is the key planner to forming team of Razakar, Albadar & Alsams, this punishment is same & fun to our Law & order.

প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে: আইনমন্ত্রী,মুক্তিযুদ্ধের সময় বাঙালি নিধনযজ্ঞের মূল পরিকল্পনাকারী গোলাম আযমের সর্বোচ্চ শাস্তি না হওয়ায় বিভিন্ন মহল ক্ষেভ প্রকাশ করলেও ‘দেশবাসীর প্রত্যাশা’ পূরণ হয়েছে বলে মনে করছেন আইন মন্ত্রী শফিক আহমেদ।এই রায় অন্যান্য দেশের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলেও মন্তব্য করেন আইনমন্ত্রী।
রায়ের প্রতিক্রিয়ায় আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, অসন্তুষ্ট হওয়ার মতো কিছু তিনি দেখছেন না।“বয়স বিবেচনা করেই এ রায় দেয়া হয়েছে, গোলাম আজমকে মোট ৯০ বছর সাজা খাটতে হবে।”এ সরকারের মেয়াদেই কিছু রায় কার্যকর করা সম্ভব হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী।

I disagree this verdict according to our Constitution, Article 39.This criminal should hang until his dead and after exhibited his death penalty his body should send Pakistan because there is not a single part of our land agree to buried this war criminals.Today our nations being fade-up.

গোলাম আযমের যুদ্ধাপরাধের রায়কে ‘সাজানো’ দাবি করে তাপ্রত্যাখ্যান করেছেন তার স্ত্রী আফিফা আযম।

This Tribunal is not honest at their jobs. So they are equal criminal. The member of this tribunal is corrupted or served their duty for Razakar, Albadar & Alsams and also eascape them.

আশা নিয়ে গিয়ে হতাশা নিয়ে ফিরলেন :‘এ রায় ৩০ লাখ শহীদের প্রতি অবিচার’
“রায়ে আমরা ভীষণ কষ্ট পেয়েছি,” বলেই ডুকরে কেঁদে ওঠেন যুদ্ধাহত এই মুক্তিযোদ্ধা।মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান উপস্থিত তরুণদের উদ্দেশে বলেন, “আমরা কয়েক বছরের মধ্যেই মারা যাব। বাবারা, তোমরা দেশটাকে রক্ষা কর।“স্বাধীনতার শত্রুদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত তারা তোমাদের ভাল থাকতে দেবে না, তারা তোমাদের পেছনে দাঁড়িয়ে বলতে থাকবে-তোমরা কেন স্বাধীনতার কথা বল।”৯ নম্বর সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান সরদার।“মুক্তিযোদ্ধারা দেশ স্বাধীন করেছে বলেই তোমরা পুলিশ হতে পেরেছ। কিন্তু রাজাকারের আত্নীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সামনে এসে বিদ্রুপ করলে তোমরা চুপ মেরে থাক। তোমাদের আমরা ধিক্কার জানাই।”ষাটোর্ধ্ব এই মুক্তিযোদ্ধা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ট্রাইব্যুনালের রায় সঠিক হয়নি।“এটা কেমন রায় হলো যে গোলাম আযমের ফাঁসি হল না। আমি কিছুতেই এ রায় মানতে পারব না,” চিৎকার করে বলতে থাকেন তিনি।১১ নম্বর সেক্টরের মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান সরকার বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, মুক্তির সংগ্রাম সফল হয়নি। স্বাধীন দেশে আমরা ন্যায্য বিচার থেকে বঞ্চিত হলাম।কান্নাজড়িত কণ্ঠে এই মুক্তিযোদ্ধাও বলেন, “এটা আমরা মানতেই পারছি না। এমন অবিচার আমাদের প্রাপ্য না।”যুদ্ধাপরাধের মামলায় সাক্ষ্য দিতে ইউরোপ থেকে আসা মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল হক মামা বলেন, “আমরা সঠিক রায় পাইনি।”পাঁচ ধরনের অপরাধের প্রতিটিতেই সর্বোচ্চ শাস্তি পাওয়ার যোগ্য হলেও বয়স ও স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনায় তাকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়।ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান মল্লিক এক বিবৃতিতে এই রায়ের বিরুদ্ধে সরকারের কাছে আপিল করার দাবি জানিয়েছেন।বিবৃতিতে বলা হয়, মুক্তিযুদ্ধের সময় নারী-শিশু-বৃদ্ধ নির্বিশেষে মানুষ হত্যা করার সময় এই অপরাধীরা তাদের বয়স অথবা অন্য কোনো কিছুই বিবেচনা করেনি।এতে বলা হয়, “গোলাম আযম একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে প্রধান বিরোধিতাকারী এবং পাকিস্তানিদের প্রধান সহযোগী হিসেবে রাজাকার-আলবদর-আলশামস বাহিনী গঠন করেছিলেন এবং তারই নির্দেশে দেশব্যাপী হত্যাযজ্ঞ চলেছিল।“তাছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘটিত নির্দিষ্ট গণহত্যার ক্ষেত্রেও তার অপরাধ প্রমাণিত। সুতরাং তাকে কোনো বিবেচনায় রেহায় দেয়া যায় না।”বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির এক বিবৃতিতে বলা হয়, “এই রায় জাতিকে চরমভাবে হতাশ করেছে। এই রায় ন্যায়বিচারের পরিপন্থী। এই রায়ের মাধ্যমে ৩০ লাখ শহীদ ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের প্রতি অবিচার করা হয়েছে।”http://littlemagliteature.blogspot.com/

............................................................................................................

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Google+ Badge

send or tell a frind

voice of the protestant


take a look!

Translate

Sayed Taufiq Ullah